«

»

নভে. ১৫

দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে মানবতা রক্ষায় মুসলিমদের অবদান

মুসলিমরা পৃথিবীকে কি কি দিয়েছে? "ইসলাম না আসলে" পৃথিবীর কি হত? ইতিহাসের কবর থেকে এগুলো একটু একটু করে বের হয়। আপনাদের অনেকেই হয়ত জানেন না, মুসলিমরা জীবন বাজি রেখে ইহুদিদের বাচাতে গিয়েছে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের ভয়ংকর দিনগুলিতে। জানেন না, সেই সব বীরদের কথা যারা জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে ইউরোপিয়ানদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। কিন্তু আজ সেই মুসলিমদেরই Peseudo-বিজ্ঞান লেখকরা মুসলিমদের বিশ্বাসের ভাইরাসের আক্রন্ত বলে; ঘৃণা বিদ্দেষের মুখে দাড় করায়। 

"আমদের আবশ্যই উচিত নয় মুসলিমদের ব্যাপারে কোন বিবরন বিগড়ে দেওয়া, যারা প্রতিনিধিত্ব করে কোটি মানুষের, এবং সেনাবাহিনীর মূল উপদান যেটির উপর আমাদের নির্ভর করতে হয়েছিল সরাসরি যুদ্ধে"-ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রী ওইন্সটন চার্চিল -মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক্লিন রুজভন্ডকে উদ্দোশ্য করে ।

ইহুদিদের রক্ষায় মুসলিমরাঃ

নাজি মিত্র শক্তি পৃথিবীর যেখানেই ক্ষমতা পেয়েছে সেখানেই স্থানীয় সহযোগিতায় ইহুদিদের উপর হত্যাকান্ড চালিয়েছে। ইউরোপে তারা যেভাবে স্থানীয়দের সহায়তা পেয়েছে, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ  অঞ্চলে সেভাবেই ব্যার্থ হয়েছে।

  • আলজেরিয়ায় উপনিবেশ স্থাপনকারী ফ্রান্সের কর্মকর্তাগন আলজেরিয়ার নাগরিকদের ইহুদীদের সম্পত্তি দখল করে ব্যাবসা করার পদ্ধতি তৈরি করেন, কিন্তু একজন আরবও তাতে যোগদান করেন নাই। মুসলিম আলেমরা এই ধারনার প্রকাশ্যে বিরুধীতা করেন।[Paul Haris, 2010, The Guardian]
  • ফ্রান্সের রাজধানি প্যারিসের গ্রেইট মসজিদের মতুয়াল্লি ইহুদিদের মসজিদে আশ্রয় দান করেন। তাদের জন্য মুসলিম জন্ম সনদ প্রদান করেন, যাতে জার্মানদের হাত থেকে তাদের রক্ষা করা যায়। [Robert Satloff]
  • মিশরিয় চিকিতসক মুহাম্মদ হেলমি রিস্ক নিয়ে জার্মানির রাজধানি বার্লিনে ইহুদিদের লুকিয়ে রাখেন। এ জন্য ইসরাঈল থেকে তাঁর পরিবারের কাছে সম্মান দেওয়া হয়, যা তাঁর পরিবার ফেরত দেয়। "যদি অন্য কোন দেশ এই সম্মান হেলমিকে দিত, আমরা অবশ্যই খুশি হতাম"-Mervat Hassan, the wife of Helmy's great-nephew, [told the AP during an interview at her home in Cairo this week, 2013]
  • তিউনিস শহরের সাবেক-মেয়র আলি, নাজিদের হাত থেকে পালিয়ে আসা ইহুদিদের আশ্রয় দান করেন। তাঁর বাগানের দড়জায় তারা পালিয়ে এসে নক করেছিল। তিনি মিত্র বাহিনী তিউনেশিয়া জয় করার আগ পর্যন্ত ইহুদিদের আশ্রয় দিয়েছিলেন।[Robert Satloff, 2010]
  • খালেদ আব্দুল ওয়াহাব, তিউনিশিয়ান ইতিহাসবিদ যখন জানলেন এক ইহুদি মেয়েকে জার্মানরা ধর্ষণ করতে চাচ্ছে, তিনি তাঁকে ও তাঁর পরিবার সহ আরো দুই ডর্জন ইহুদি পরিবারকে লুকিয়ে রাখেন মিত্র বাহিনী আসার আগ পর্যন্ত।[Gariwo]
  • নাজিরা মুসলিমদের নিয়ে ইহুদিদের আক্রমণ করার পরিকল্পনা জানতে পেরে, শেখ তৈয়ব আল অকবেই মুসলিমদের নির্দেশ দেন ইহুদিদের আক্রমন না করতে।[Robert Satloff, 2006]
  • নাজিরা আলবেনিয়া দখল করে, ইহুদিদের তুলে দিতে বললে, আলবেনিয়ানরা তাদের তুলে দেয়নি। এবং বিভিন্ন প্রকার মিথ্যা ডকুমেন্ট তৈরি করে ইহুদিদের বাঁচায় এবং পালিয়ে আসা ইহুদি রিফিউজি দেশে আশ্রয় প্রদান করে।[ডাঃ হাবিব সিদ্দিকী, ২০১৩]
  • আলবেনিয়ার ১৭ বছরের এক মুসলিম বালক রফিক ভেসলি ও তাঁর গ্রামবাসী ঝুকি নিয়ে ইহুদিদের আশ্রয় প্রদান করে।[Eva Illouz]
  • আলবেনিয়ায় বেঁচে যাওয়া অনেক ইহুদি বলেছেন, তাদের আলবেনিয়ান সহযোগিতাকারিরা তাদের নিরাপত্তা দিয়েছে, এই জন্য যে এটা ইসলামি নৈতিক দায়িত্ব "how their Albanian hosts vied for the privilege of offering sanctuary, on the grounds that it was an Islamic ethical obligation"-[Paldail in his forward to Norman H. Gershman]
  • কসভো ও বসনিয়াণ মুসলিমরাও ইহুদিদের রক্ষায় এগিয়ে আসেন এবং ইউরোপের মধ্যে কসোভো ও একটি স্থান যেখানে সব থেকে বেশী আনুপাতিক হারে ইহুদিরা রক্ষা পায়।[সূত্র]

ডাঃ হাবিব সিদ্দিকির লেখায় আরো যাদের নাম এসেছেঃ

  1. যুদ্ধের পুরোটা সময় তুরষ্কের কূটনীতিকরা (যেমনঃNecdet Kent, Namık Kemal Yolga, Selahattin Ülkümen and Behiç Erkin) সব কিছুর ঝুকি নিয়েছেন ৩৫ হাজার ইউরোপিয়ান ইহুদিদের “নাজি গণহত্যা” বাঁচানোর জন্য। তাঁরা অনেকেই বাঁচাত  সক্ষম হয়েছিলেন তুরষ্কের নিরোপেক্ষতার অজুহাতে দেখিয়ে, যে তুর্কি ইহুদিদের না মারতে। অন্যদিকে হাজারো ইউরোপিয়ান ইহুদিদের “নাজি গণহত্যা” থেকে পালিয়ে তুরষ্কে আশ্রয় গ্রহনের জন্যু অনুমেদন দিয়েছিলেন।
  2. যখন নাজিরা ইরানী ইহুদিদের জন্য আসল যারা ফ্রান্সের বসবাস করছিলেন, আব্দুল হুসাইন সারাদারি যিনি ফ্রান্সে থাকা ইরানী কূটনীতিক, নিজের পজিশন ও প্রভাব ব্যাবহার করে ইরানী ইহুদিদের বাঁচিয়ে ছিলেন। তিনি একটি গল্প তৈরি করলেন যে ইরানী ইহুদিরা আসল ইহুদি নয়, তাঁরা পার্সিয়ান কিন্তু শত বৎসর আগে মুসার শিক্ষা গ্রহন করেছিলেন, এবং এই জন্য তাঁরা নাজিদের আইনের কোন বিষয় হতে পারে না। কয়েক মাসের বিতর্কের পর তিনি প্রায় সবাইকে রাজি করাতে পেরেছিলেন একজন মানুষ ইচমেনকে ছাড়া, যিনি সারদারির যুক্তিকে “প্রচলিত ইহুদি ট্রিক” বলে বর্ননা করেন। … যখন ইরান মিত্রবাহিনীর সাথে সন্ধিতে আবদ্ধ হয় সারদারিকে উপরের মহল থেকে ফিরে আসতে নির্দেশ জারি করে, সারদারি ঐ নির্দেশ পালন করেননি। তাঁর কূটনীতিক স্বার্থ ও সম্মান ত্যাগ কতে তিনি জীবনের ঝুকি নিয়ে ফ্রান্সে থেকে যান ইহুদিদের বাঁচানোর জন্য, এবং তিনি নিজ থেকেই এর ব্যায়ভার বহন করেন। যুদ্ধের শেষে প্রায় ২০০০ মত ইহুদী তাঁর কাছে ঋণী হয়ে থাকে।
  3. যেজনেবা হারদাগা, একজন বসনিয়ান মুসলিম মহিলা যিনি সারাজেভো তে থাকতেন, তাঁকে ইসরাঈল “Righteous among the Nations” হিসাবে সম্মাননা দান করেছিল তাঁর ইহুদি প্রতিবেশী জোসেফ কাভিলো কে নাজি হলকাস্টের থেকে বাঁচানোর জন্য।

ইউরোপের স্বাধীনতা রক্ষায় সরাসরি রণক্ষেত্রে মুসলিমরাঃ 

দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে মিত্রবাহিনীর পক্ষ মুসলিম সৈনিকরা সরাসরি যুদ্ধে অংশগ্রহন করে।

  • ফ্রান্সের স্বাধীনতার জন্য প্রায় ২ লক্ষ ৩৩ হাজারের বেশী মুসলিম যুদ্ধ করে যারা উত্তর আফ্রিকা ও আলরিয়ার অধিবাসী ছিল। তারা নৈতিক দয়িত্ববোধ থেকেই অংশগ্রহন করেছিল। প্রায় ৪০ হাজার যোদ্ধা ইউরোপ মুক্ত করতে জীবন উতসর্গ করেন।
  • ব্রিটিশদের স্বাধীনতা রক্ষায় প্রায় চার লক্ষ মুসলিম সৈনিক যুদ্ধ করেছিল। এর মধ্যে টিপু সুলতানের বংশধ্বর নুর হায়াত খান ছিলেন বীর গোয়েন্দা। তিনি মহিলা হওয়া সত্তেও স্পেশিয়াল অপারেশন চালান। তিনি ছিলেন বহু ভাষাবিদ। এবং তিনি জার্মানদের হাতে নির্মম ভাবে প্রাণ হারান। মুসলিমদের এমন কিছু হয় নাই যে যুদ্ধে যেতেই হত। তারা মানবতার খাতিরেই যুদ্ধে অংশগ্রহন করেন।

    "We must not on any account break with the Moslems, who represent a hundred million people, and the main army elements on which we must rely for the immediate fighting". -Winston Churchill to U.S. President Franklin Roosevelt

  • রাশিয়ার স্বাধীনতা রক্ষা রাশিয়ান মুসলিমরা যুদ্ধ করেছে। রাশিয়ার জন্য ঠিক কতজন মুসলিম তাদের জীবন হারিয়ে ছিলেন তা সঠিক করে কখনই বলা যাবে না, তা যে বহু তা এমনিতেই বুঝা যায়। উজবেক মুসলিমরা ছিল রেড আর্মির শক্তিশালী ইউনিট। তাতে তাতার, কাজাখ, কিরগিজরাও ছিল। যাইহোক, সেই সময় হিটলার যখন সিভিয়েট ইউনিয়ন দখল করার পরিকল্পনা করে কেক কাটেন সিভিয়েট ইউনিয়নের বিভিন্ন অঞ্চলের নামে। আজারবাইজানের রাজধানি বাকুর নামে কেইক কাটেন হিটলার নিজেই, ব্যাটেল অব স্ট্যালিনগ্রাড ছিল বাকু দখলের চেষ্টা। সেই গুরুত্বপূর্ন বাকু দখলেও ব্যার্থ হয় নাজি বাহিনী, কারন আট লক্ষ আজারবাইজানি যুদ্ধ করেন এবং প্রায় চার লাখের মত মানুষ নিজেদের জীবন উতসর্গ করে। আজারবাইজান হল প্রথম গনতান্ত্রীক দেশ মুসলিম বিশ্বের মধ্যে।[কস্পিয়ান রিপোর্ট, আজারবাইজান]

আরো জানতে পড়ুন, ও পড়ুন

উপসংহারঃ পৃথিবীতে মানবতা রক্ষায় মুসলিমদের অবদান স্বর্নাক্ষরে লিখা আছে। রাশিয়া, ইংল্যান্ড, ফ্রান্সের স্বাধীনতা রক্ষায় মুসলিমদের অবদান কখনই অস্বীকার করা যাবে না। চীনের স্বাধীনতা রক্ষায়ও মুসলিমদের বিশেষ অবদান রয়েছে। ভারতের স্বাধীনতার বীর তিতুমীর, টিপু সুলতানদের কথা কেউ মুছে দিতে পারবে না। এই সদা প্রতিবাদি মুসলিমদের কেই সন্ত্রাসী বলে অবেজ্ঞা করা হয়, কারণ তারা মজলুম হতে চায় না। বিখ্যাত মুসলিম (The Black Prince) ম্যালকম এক্স যিনি নামের শেষে এক্স ব্যাবহার করেন, কারণ নিশ্চই আফ্রিকা থেকে তাঁর পরিবারকে ধরে নিয়ে আসার আগে তাদের কোন পারিবারিক পদবী ছিল যা হারিয়ে গিয়েছে, সেই হারানো পদবীকে এক্স দ্বারা প্রকাশ করেন, তিনি বলেন, "আমাদের বই কোরানে এমন কিছু নাই যে শান্তিপূর্নভাবে অত্যাচারিত হও। আমাদের ধর্ম আমাদের শিক্ষা দেয় বুদ্ধিমান হতে। শান্তি পূর্ন থাকো, বিনীত হও, আইন মেনে চল, সবাইকে সম্মান কর, কিন্তু কেউ যদি তোমাকে থাপ্পর দেয়, তাহলে এর জবাব দিও। এজন্যই ইহা ভাল ধর্ম।"

কৃতজ্ঞতাঃ

Arab rescue efforts during the Holocaust, Wikipedia, http://en.wikipedia.org/wiki/Arab_rescue_efforts_during_the_Holocaust

ডাঃ হাবিব সিদ্দিকি, Some inspiring stories of Jewish-Muslim cooperation during hard times, http://www.shodalap.org/siddiqui/22418/

Dr Azeem Ibrahim, How Muslims Won the Second World War, http://www.huffingtonpost.com/azeem-ibrahim/how-muslims-won-the-secon_b_5202541.html

পোস্টে উল্লেখিত সকল লিংক।

জেনে নিন কিছু বিষয়ঃ

ছবিঃ ৮শতকে (৭৭৪ খ্রিস্টাব্দের দিকের) ইংল্যান্ডের একটি অংশের রাজার মুদ্রা যাতে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুল্লাহ লিখা আছে। মুসলিম মুদ্রায় ছাপ দিয়ে বানানো হয়েছে। ছবিটা ওয়েকিপেডিয়ার।

 

১০ মন্তব্য

এক লাফে মন্তব্যের ঘরে

  1. মজলুম

    Great post. keep on…………..

    1. ১.১
      ফাতমী

      ধন্যবাদ মজলুম ভাই।

  2. শাফিউর রহমান ফারাবী

    এগুলি আসলে চেপে রাখা ইতিহাস। আমরা অনেকেই এইসব জানি না। আপনাকে ধন্যবাদ এগুলি জানানোর জন্য।

    1. ২.১
      ফাতমী

      আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাই। আশা করি, অন্যকোন ভাবে না হওক পাঠক হিসাবে সাথে পাব। ভাল থাকুন।

  3. নির্ভীক আস্তিক

    পোষ্টটি গত তিন দিনে আমি তিনবার ঘুরে গিয়েছি। মন্তব্য করব করব বলা করা হচ্ছে না। তথ্য গুলো সংগ্রহে আপনার পরিশ্রমের প্রশংসা না করে পারলাম না। Please, carry on. 

    1. ৩.১
      ফাতমী

      শেষ পর্যায়ে মন্তব্য করলেন বিধায় ভাল লাগল। মন্তব্যের অনুপস্থিতিতে আমি আরো ভাবলাম আমার লেখার মানটাই একেবারে খারাপ। তবুও কিছু পাঠক পেলাম সেটাই বা মন্দ কি।

      মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

  4. কিংশুক

    নতুন অনেক কিছু জানলাম।

    1. ৪.১
      ফাতমী

      @কিংশুক,

      ভাই আপনি ছিলেন আমার নিয়মিত পাঠক। আপনার মন্তব্য দেখে ভাল লাগল। এই সিরিজে আপনি উতসাহ দিচ্ছিলেন, ঐ লিংকটা শেষ পর্বের। পড়তে পারেন।

      1. ৪.১.১
        কিংশুক

        আগেই পড়েছি। আসলে কারবালার হৃদয় বিদারক ঘটনা সম্পর্কে জানার ইচ্ছা থাকায় বেশ কিছু বই কিনে পড়েছি , কিছু লেকচারও সামনিসামনি শুনেছি গত আশুরাতে। কারবালার ঘটনা সম্পর্কে আহলে সুন্নাহ'র বিশ্লেষন, উপসংহার এখন মোটামুটি জানি। আপনার লেখা খারাপ হয়নি। মাহফুজ শান্ত ভাই তাঁর হিসাবে কোরআন বিরোধী হাদিসের বিরোধিতা করতে গিয়ে কারবালার ঘটনায় সাহাবা রা: গণের ভূমিকায় সন্দেহ করছেন মনে হল।

  5. mdmasumbillah

    ধন্যবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।