«

»

Oct ১৯

অপেক্ষা

কি এক বেপরোয়া বাতাস!
সহসা ঝিনুকে লুকানো প্রিয়ার মুখশ্রী উন্মোচিত হল।
 দুষ্টু বাতাস অবগুণ্ঠন সরিয়ে দিল-
যেন গোলাপের কড়ি কেবল ফুটল চোখের সামনেই;
হরিণীর মত মায়াবী আঁখিতে ঘুমন্ত প্রেমের কবিতা লেখার আসর,
ওষ্ঠে লাবণ্যের কারুকার্য ;
দাঁতে পূর্ণিমা জ্যোঁতি ছলছল;
রাতের গুমোট আঁধার তার দীঘল কেশে।

আমার নিঁখাত ভালবাসার আবেদন তার মনোদ্বারে এখনও দোদুল্যমান;
আমি পথের পানে চোখের পাতা খুলে বসে অসীম অপেক্ষায়..
সেই স্নিগ্ধ ভোরের মিষ্টি আলোর পরশে তার স্বপ্ন স্নান করে কিনা,
শিউলি বিছানো তলে চরণ পড়ে কিনা,
আবেগের এক পশলা বৃষ্টি তার চোয়াল রাঙায় কিনা,
আমার নিস্তব্ধ আহবানে তার হৃদয়ে কদম ফোঁটে কিনা,
ময়ূরের মেলে ধরা পেখমের মত তার ঠোঁট হাসে কিনা,
সকালে বুলবুলির সাথে সে সাড়া দেয় কিনা।
 নাকি শ্রাবনের মেঘ হয়ে সূর্যটাই ঢেকে দেয়;
কুয়াশার চাদর হয়ে নিজেকে ঢেকে নেয় লজ্জাবতীর মত।
 আমি পথের পানে চোখের পাতা খুলে বসে অসীম অপেক্ষায়..

Leave a Reply