«

»

Jul ১০

নদীর ভূবনে আমার হলো না যাওয়া

অনেক দূর হেঁটেছি কাক ডাকা ভোর থেকে
তবু যাওয়া হলো না নদীর ভূবনে ।

আঙিনা পেরিয়ে কুয়া তেজী পুরুষের কল্যাণে ক্ষয়ে যাওয়া
এবড়ো থেবড়ো পাড় লতা পাতায় ঢাকা ঝোপ জঙ্গল
দাদা দাদীর কবর আঁধার জলাশয় বিবর্ণ মাট
মাঠের হৃদয় ফুঁড়ে কালি মন্দির এক পায়ে দাঁড়িয়ে
প্রহর কাটায় । মন্দিরের গা ঘেঁষে সতিনের পুকুর
আউলা বাতাসে ঝড় তোলে মাঝে মাঝে রক্ত জরায় ।

কালো জলে একাকার সতিনের পুকুর পেছনে ফেলে
এগোলে
ভেলুয়ার মরা গাং । গাঙ্গের পাড় ধরে আঁকাবাঁকা রাজপথ
প্রধান ফটক নদীর আপন ভূবন । ভুবনের উপকন্ঠে
নদীর ছায়া নিশিদিন রঙ খেলায় মেতে রয় ।

অনেক দূর হেঁটেছি তবু নদীর ছায়া
পেরিয়ে
যাওয়া হলো না নদীর ভূবনে । নদী কি
সঙ্গীহীন নাকি স্বসঙ্গ প্রহর কাটায়?

আঙিনা পেরিয়ে কুয়া শান বাঁধানো ঘাট সতীনের পুকুর
দখিন সাগর সন্ধ্যা লাগ লাগ বাজুতে পড়েছি মাদুলী তবু
যাওয়া হলো না নদীর ভূবনে ।

ভূবনের উপকন্ঠে
বারবার হাজির হই সোনার কাঁকন নিয়ে
নদী তবু খোলে না দুয়ার
আমার যাওয়া হলো না আলোর ভূবনে ।
 

২ comments

  1. 1
    সাদাত

    কবিতায় বিরামচিহ্নের অভাব বোধ হলো। কোথায় থামতে হবে, বুঝা যাচ্ছে না।
    বানান খেয়াল করুন-
    ভূবনে -> ভুবনে
    কল্যান -> কল্যাণ
    স্বসঙ্গ -> সসঙ্গ  (সঙ্গী সহকারে)
    উপকন্ঠ -> উপকণ্ঠ
    আরো কিছু ভুল আছে, আপনি চেক করে নিয়েন।
     
    ভালো কথা, 'নদীর ভুবন' বলতে কী বুঝিয়েছেন?
     

    1. 1.1
      মফিজুল ইসলাম খান

      ধন্যবাদ জনাব। ভূবন মানে পৃথিবী। ভূবন বানান সঠিক। কল্যাণ বানান সঠিক। আমি কল্যাণই লিখেছি, কল্যান লিখিনি। স্ব মানে নিজ। সঙ্গ মানে বন্ধুত্ত্ব অর্থাৎবন্ধু। স্বসঙ্গ মানে নিজ বন্ধুসহ। স্বসঙ্গ বানান ঠিকই আছে। উপকন্ঠ বানান ঠিকই আছে। আমার জানামতে কোন বানান ভুল নেই। দয়া করে বাংলা একাডেমীর বানান অভিধান দেখা যেতে পারে।  
      আধুনিক কবিতায় বিরাম চিহ্ন দাড়ি ছাড়া অন্য কোন বিরাম চিহ্ন সাধারণত ব্যবহার করা হয় না।
      নদীর ভূবন বলতে সৃষ্টি কর্তার নৈকট্যকে বুঝানো হয়েছে।

Leave a Reply